শরতের বাহারি ফুল সমাহার

বর্ষার বারিধারা পেরিয়ে এসেছে স্নিগ্ধ শরৎ। সাদা মেঘের ভেলা ভেসে বেড়াচ্ছে আকাশের নীলে। রাতে চাঁদের উজ্জ্বল আলোয় আলোকিত হয়ে উঠছে পৃথিবী। প্রকৃতি সেজেছে বাহারি ফুলের সাজে। নদীর দুধারজুড়ে শুভ্র কাশের বন। এছাড়া আরও কিছু ফুলের পরিচিতি দেওয়া হল।

শাপলা: এ সময়ে পুকুর, ডোবা, হাওড়, বিল সব জায়গায় ফুটেছে শাপলা ফুল। শাপলা বীরুৎ জাতীয় জলজ উদ্ভিদ। এ উদ্ভিদের বৈজ্ঞানিক নাম Nymphaea nouchali, এটি Nymphaeaceae পরিবারের উদ্ভিদ। শাপলার কন্দ বা মূল পানির নিচে মাটিতে থাকে। পাতা বড়, গোলাকার, বোঁটা লম্বা। ফুল বড়, রং সাদা। শাপলার পরিণত ফলকে ঢ্যাপ বা ভেট বলে। ঢাকার বলধা গার্ডেনে দেখা যায় দুর্লভ হলুদ শাপলাও।

পদ্ম: পদ্ম ভাসমান জলজ উদ্ভিদ। এ উদ্ভিদের বৈজ্ঞানিক নাম Nelumbo nucifera, এটি Nymphaeaceae পরিবারের উদ্ভিদ। সারা বছর পানি থাকে এমন জায়গায় পদ্ম ভালো জন্মে। তবে খাল-বিল, হাওড়, বাঁওড়ে এ উদ্ভিদ জন্মে। বর্ষাকালে ফুল ফোটে। ফুলের রং লাল, গোলাপি, সাদা ও সুগন্ধিযুক্ত। দুর্গাপূজার প্রিয় ফুল পদ্ম। ফুল ও ফলের ভেষজগুণ আছে। তিন ধরনের পদ্ম ফুল রয়েছে। যেমন-শ্বেতপদ্ম, লালপদ্ম, নীলপদ্ম।

শিউলি: শরতের রাতে ফুটে শিউলি ফুল। ঝরে যায় ভোরবেলায়। শেষ রাতে শিউলির সুবাস ছড়িয়ে পড়ে বহুদূর। এ উদ্ভিদের বৈজ্ঞানিক নাম Nyctanthes arbortristis, এটি Oleaceae পরিবারের উদ্ভিদ। ফুল ছোট, রং সাদা। দেখতে কিছুটা জুঁই ফুলের মতো; বাসন্তী রঙের বোঁটা ফুলের মাঝখানে দেখা যায়। শরতের সকালে হালকা শিশির ভেজা সবুজ ঘাসের ওপর শুভ্র শিউলি ফুল ছড়িয়ে পড়ে। শরৎ মানেই যেন শিউলির শুভ্রতা। একে ডাকা হয় শেফালি নামেও।

কাশফুল: নীল আকাশে সাদা মেঘের ভেলা আর কাশফুল দেখলেই আমরা সবাই বুঝি শরৎ এসেছে। কারণ, কাশফুল শরতের আগমনের প্রতীক। এ উদ্ভিদের বৈজ্ঞানিক নাম Saccharum spontaneum, এটি Poaceae পরিবারের উদ্ভিদ। বাতাসে দোলে মোহনীয় ভঙ্গিমায়। কাশ তৃণ বা ঘাসজাতীয় গাছ। শরৎকালে কাশের সাদা ও রুপালি ফুল ফোটে। শরতের হালকা বাতাসে সাদা কাশফুলের দুলতে থাকার দৃশ্য মনোরম।

Leave a Reply

Your email address will not be published.