পুরো কুরআনের অডিও যাঁর কণ্ঠে প্রথম রেকর্ড হয়

সর্বপ্রথম পুরো কুরআনের অডিও রেকর্ডের ধারা চালু করেন মিসরের প্রখ্যাত একজন কারির কণ্ঠে।

তাঁর নাম শায়খ মাহমুদ খলিল আল হুসারি (রহ.)। ১৯৬১ সালে তাঁর কণ্ঠে হাফস পদ্ধতিতে পুরো কুরআনুল কারিমের অডিও রেকর্ড সম্পন্ন হয়।
শায়খ হুসারি (রহ.) বিনা পারিশ্রমিকে কাজটি আঞ্জাম দেন। এরপর তাঁর কণ্ঠে আরো তিন পদ্ধতির কোরআন তিলাওয়াত রেকর্ড করা হয়। প্রথম কাজটি করার পরে এক সাক্ষাৎকারে শায়খ মাহমুদ খলিল আল হুসারি (রহ.) বলেন, আমার কণ্ঠে হাফসের বর্ণনায় সর্বপ্রথম পুরো কোরআনে কারিমের অডিও রেকর্ড সম্পন্ন হয়েছে। মহান আল্লাহ তাঁর পবিত্র কুরআনের মাধ্যমে

আমাকে অনেক সম্মানিত করেছেন। পবিত্র এ গ্রন্থের বদৌলতে আমি সাত মহাদেশে আমন্ত্রিত হয়েছি। এটা তাঁর অসীম অনুগ্রহ!’কুরআনের জন্য বিভিন্ন দেশে সফর করে বহু অভিজ্ঞতার ঝুলি ভারি করেছেন মহান এ কারি। তাঁর মেয়ে ইয়াসমিন হুসারি, শায়খ ‘হুসারির পিতা একবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সফরে যান এবং মার্কিন কংগ্রেসে পবিত্র কুরআন তিলাওয়াত করেন। তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জেমি কার্টার তাঁর পিতার তিলাওয়াত শুনে মুগ্ধ হয়ে পবিত্র কুরআনের

একটি বিশেষ প্রতিলিপি উপঢৌকন দেন। সেই সফরে তাঁর পিতা আমেরিকায় সর্বপ্রথম উচ্চেঃস্বরে আজানও দিয়েছেলেন।’ রেডিও মিসরের প্রথম পরিচালক আবদুল খালেক তাঁর সম্পর্কে বলেন, ‘তিনি ছিলেন কুরআনের একজন খাঁটি শিক্ষক, সে সময়ে পুরো মিসরে কুরআনের তালিম ও পঠন-পাঠনে তিনি ছিলেন অদ্বিতীয় ব্যক্তি। তা ছাড়া তিনি এমনভাবে কুরআন তিলাওয়াত করতেন, যেন পবিত্র এ গ্রন্থে বর্ণিত শরিয়তের হুকুম আহকাম ও বিধানাবলি স্পষ্ট ভাষায় বর্ণনা করছেন। মিসরের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ তহা আবদুল ওহহাব বলেন,

শায়খ হুসারির কণ্ঠ ছিল সুমিষ্ট, তাঁর তিলাওয়াত মানুষের হৃদয় ও মস্তিষ্কে রেখাপাত করত, তাঁর ভরাট ও দরাজ কণ্ঠের তিলাওয়াত এক কথায় অসাধারণ ছিল।’ শায়খ মাহমুদ খলিল আল হুসারি (রহ.) ১৯১৭ সালে মিসরের পশ্চিমাঞ্চলীয় জেলা তানতায় জন্মগ্রহণ করেন।

মাত্র ১০ বছর বয়সে পবিত্র কুরআনের হাফেজ হওয়ার গৌরব অর্জন করেন। কুরআনের জন্য নিবেদিতপ্রাণ এই মহান ব্যক্তিত্ব ১৯৮০ সালের নভেম্বর মাসে ইন্তেকাল করেন। আল্লাহ তাঁকে জান্নাতের সর্বোচ্চ সম্মান দান করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.