চুল কালো আর ঘন রাখার ঘরোয়া সহজ ৫ টি উপায়

নানা কারণে আজকাল কম বয়স থেকেই চুল সাদা হতে শুরু করে। এর সঙ্গে যুক্ত হয় চুল পড়ার সমস্যা। তাই ঘন আর কালো চুল এখন অনেকের কাছেই স্বপ্ন।

কিন্তু স্বপ্ন সত্যি করার উপায় তো আমরা কবে থেকে বলে আসছি। ঠিক সেই জন্য একরাশ ঘন কালো চুল পাওয়ার কিছু বিশেষ পদ্ধতি জানাতে হাজির হলাম আজ।

১. ব্ল্যাক টি

ব্ল্যাক টি

সাধারণত যে কালো চা পাতা আমরা চা খাওয়ার জন্য ব্যবহার করি সেটি চুলের জন্য খুব উপকারী। এতে থাকা অ্যান্টি অক্সিডেন্ট চুলের ফলিকল মজবুত করে। ফলে চুল পড়া অনেক কমে যায়।

উপকরণঃ
কিছু কালো চা পাতা

পদ্ধতিঃ
চা পাতা গরম জলে দিয়ে ভিজিয়ে রাখুন। তারপর ঠাণ্ডা করে নিন। ঠাণ্ডা হয়ে গেলে সেটি হাতে একটু চটকে স্ক্যাল্পে লাগিয়ে রাখুন ১৫ মিনিট মতো। তারপর ধুয়ে নিন সাধারণ জলে। শ্যাম্পু না করলেও হবে। ভাল করে ধুয়ে নিতে হবে। এটি সপ্তাহে দু’বার করুন।

২. হেনা প্যাক
হেনা চুলের সার্বিক উন্নতির জন্য একটি বিখ্যাত উপাদান। এর সঙ্গে আরও কিছু জিনিস যোগ করলে তা হবে সোনায় সোহাগা। এই প্যাক চুল মজবুত করার পাশাপাশি কালোও করবে।

উপকরণঃ
গরম জল, কফি পাউডার ১ চামচ
হেনা গুঁড়ো ৩ চামচ

দই ২ চামচ

আমলা

লেবুর রস ২ ছোট চামচ
পদ্ধতিঃ
উষ্ণ জলে আগে কফি পাউডার মিশিয়ে নিন। ভিজে গেলে তার মধ্যে হেনা পাউডার, দই, আমলা আর লেবুর রস মিশিয়ে ভাল করে ফেটিয়ে নিন। এই প্যাক এবার চুলে লাগিয়ে ১ ঘণ্টা মতো অপেক্ষা করুন। তারপর ভাল শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ভাল কোনও কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। সপ্তাহে এক দিন করলেই হবে।

৩. কালো তিল
কালো তিলও চুল কালো রাখতে খুব ভাল সাহায্য করে। এটা দিয়ে আপনি চুল দীর্ঘ দিন কালো রাখতে পারবেন।

উপকরণঃ
২ চামচ কালো তিল
পদ্ধতিঃ
কালো তিল আগে অল্প গরম জলে ভিজিয়ে রাখুন। ১০ মিনিট পর সেই তিল বেটে নিন আর চুলে, স্ক্যাল্পে ভাল করে মেখে নিন। ২০ মিনিট অপেক্ষা করে চুল শ্যাম্পু করে নিন। প্রতি সপ্তাহে একবার করলেই ভাল ফল পাবেন।

৪. আমলা পাউডার
চুলে সাদাটে ভাব এলে আমলা পাউডারের এই মিশ্রণ খুব তাড়াতাড়ি চুল কালো করবে।

উপকরণঃ
২ চামচ আমলা পাউডার
হাফ লিটার জল
লেবুর রস
পদ্ধতিঃ
হাফ লিটার জলের মধ্যে আমলা পাউডার মিশিয়ে ফুটিয়ে নিন ১০ মিনিট মতো। জল ঠাণ্ডা হয়ে গেলে এর মধ্যে লেবুর রস দিন। এই মিশ্রণ দিয়ে রোজ স্নানের সময়ে চুল ধুয়ে নিন। খুব ভাল উপকার পাবেন রোজ এটি করলে।

৫. ঘি আর তেল
এই মিশ্রণ খুব ভাল চুলের জন্য। খুব একটা কিন্তু ঘি চুলের জন্য ব্যবহার হয় না। কিন্তু চুলের জন্য ঘি খুব উপকারী।

উপকরণঃ
১ লিটার ঘি
২৫০ গ্রাম জল
১ লিটার আমলা রস
পদ্ধতিঃ
২৫০ গ্রাম জলে ১ লিটার ঘি মিশিয়ে ভাল করে গুলে নিন। এর মধ্যে মিশিয়ে নিন আমলা রস। এই মিশ্রণ অল্প আঁচে গ্যাসে বসিয়ে জল বেরিয়ে যেতে দিন। এবার যে ঘন অংশ পড়ে থাকবে সেটি একটি পাত্রে নিন আর শ্যাম্পু করার আগে ব্যবহার করুন।

৬. লেবু আর নারকেল তেল

লেবু আর নারকেল তেল
এই দুটি উপকরণই চুলের জন্য খুব ভাল কাজ দেয়।

উপকরণঃ
৩ চামচ নারকেল তেল
হাফ চামচ লেবুর রস
পদ্ধতিঃ
দুটি জিনিস ভাল করে মিশিয়ে চুলে ভাল করে মাখুন। রোজ রাতে এটি করুন শুতে যাওয়ার আগে। পরের দিন শ্যাম্পু করে নিন। রোজ না হলে এক দিন ছাড়া করুন।

৭. তিলের তেল আর ক্যাস্টর অয়েল
উপকরণঃ
সমপরিমাণে দুটি তেল

পদ্ধতিঃ
দুটি তেল সমান ভাবে নিয়ে মিশিয়ে নিন। এই তেলের মিশ্রণ চুলে আর স্ক্যাল্পে লাগিয়ে রাখুন সারা রাত। পরের দিন শ্যাম্পু করে নিন মাইল্ড শ্যাম্পু দিয়ে। সপ্তাহে তিন দিন করলেই হবে।

৮. পেঁয়াজ আর লেবুর রস
একটু কষ্ট করে গন্ধ সহ্য করতে পারলে দারুণ ফল পাবেন এই প্যাক থেকে।

উপকরণঃ
৪ চামচ পেঁয়াজের রস
২ চামচ লেবুর রস
পদ্ধতিঃ
একটা বড় পেঁয়াজের থেকে রস বের করে নিন। এর সঙ্গে লেবুর রস মিশিয়ে নিন। সপ্তাহে দুই থেকে তিন বার স্ক্যাল্পে দিন আর ৪৫ মিনিট রেখে দিন। তারপর ভাল করে শ্যাম্পু আর কন্ডিশনার ব্যবহার করে নিন।

৯. হার্ডস লিভস আর নারকেল তেল
উপকরণঃ
হার্ডস লিভস ২ চামচ
৪ চামচ নারকেল তেল
পদ্ধতিঃ
নারকেল তেলের মধ্যে হার্ডস লিভস নিয়ে অল্প গরম করে নিন। এই তেল অল্প ঠাণ্ডা করে স্ক্যাল্পে ব্যবহার করুন। সপ্তাহে চার দিন করুন।

১০. আমন্ড তেল আর লেবু
আমন্ড চুলের জন্য ভাল কারণ এটি ভিটামিন ই-তে ভরপুর। আর লেবু তো ভিটামিন আর অ্যান্টি অক্সিডেন্টের জন্য বিখ্যাত। চুলের কালো রঙ এই মিশ্রণে বজায় থাকবে।

উপকরণঃ
৩ চামচ আমন্ড তেল
১ চামচ লেবুর রস
পদ্ধতিঃ
দুটি উপকরণ ভাল করে মিশিয়ে নিন। স্নানের ৩০ মিনিট আগে চুলে লাগিয়ে নিন। তারপর শ্যাম্পু করে নিন।

এই দশটি পদ্ধতি আপনাদের খুব উপকারে আসবে। নিয়ম করে করলে পার্থক্য বুঝবেন অনায়াসেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.