আপনার প্রেমিকা/স্ত্রী কি সুন্দরী?

হেডলাইন দেখে অনেকেই ভ্রু কুচকে উঠেছেন। তবে তার আগে পুরো বিষয়টা একটু ভালো করে খেয়াল করে দেখুন। আমরা সবাই সুন্দরের পূজারী। কিন্তু এই সুন্দর নিয়ে আমাদের বিড়ম্বনারও কিন্তু শেষ নেই।

প্রেম-ভালোবাসা থেকে শুরু করে বিয়ে পর্যন্ত সব জায়গাতেই সুন্দরের প্রাধান্য। সকলের মনে একই বাসনা – আমি নিজে যেমনই হই, আমার প্রেমিকা কিংবা স্ত্রী সবার চেয়ে সুন্দর হোক। কিন্তু এই সুন্দরের বিপরীতে পরিবার, সমাজ সর্বত্র আপনাকে কোনঠাসা হয়ে থাকতে হবে। এমনকি এ জন্য অনেকের জীবনে নেমে আসে বিভিন্ন ধরনের বিপর্যয়। আসুন এ বিষয়ে একটু বিস্তারিত জেনে নিই।

পারিবারিক সমস্যা
প্রেমিকা যদি আপনার চাইতে অনেক বেশি সুন্দর হয় তাহলে প্রেমিকার পরিবার থেকে আপনাকে মেনে নিতে চাইবে না সহজে। সুন্দরী মেয়েদের অভিভাবকরা তাদের মেয়ের জন্য সুন্দর ছেলে খুঁজে থাকেন। আর তাই আপনার চেহারা যদি ভালো না হয় তাহলে মেয়ের পরিবার থেকে আপনাকে নানান রকম আপত্তিকর কথা শুনতে হতে পারে।

সামাজিক বিতর্ক
আপনার স্ত্রী/প্রেমিকা যদি আপনার চাইতে অনেক বেশি আকর্ষণীয় হয় তাহলে নানান রকমের কটু বিতর্কও হয়। এক্ষেত্রে সমাজের মানুষজন বলা বলি করতে থাকে ‘এতো সুন্দর মেয়েটা এটা কি বিয়ে করেছে’ কিংবা ‘ দুজনকে একদমই মানাচ্ছে না!’ সমাজের মানুষের এসব বিতর্ক আপনি চাইলেও এড়াতে পারবেন না।

অমূলক সন্দেহ
স্ত্রী/প্রেমিকা খুব বেশি আকর্ষণীয় ও সুন্দরী হলে পুরুষদের মনে অমূলক সন্দেহের জন্ম নিতে পারে। স্ত্রী/প্রেমিকার বন্ধু, সহকর্মীদের কে নিয়ে অহেতুক মনের মাঝে নানান রকম অমূলক সন্দেহের উদ্রেক হতে পারে এক্ষেত্রে।

হীনমন্যতা
স্ত্রী/প্রেমিকা যদি আপনার চাইতে আকর্ষণীয় হয় তাহলে আপনি সারাক্ষণই হীনমন্যতায় ভুগতে পারেন। আপনার অজান্তেই আপনার মন হীনমন্যতায় ভোগা শুরু করবে। ফলে নানান রকম সামাজিক অনুষ্ঠান ও পারিবারিক অনুষ্ঠানে আপনি মানুষজনের সামনে যেতে চাইবেন না। মনের কোনো এক কোণে স্ত্রীর প্রতি হিংসা জন্মে যেতে পারে আপনার।

বন্ধু যখন শত্রু
স্ত্রী/প্রেমিকা খুব সুন্দরী হলে বন্ধুরাই শত্রুতে পরিণত হতে পারে। আপনার খুব কাছের বন্ধুরাই আপনার স্ত্রীর সাথে ফ্লার্ট করতে চাইবে। আপনার স্ত্রীর সঙ্গ পাওয়ার জন্য যখন তখন সুজোগ খুজবে তারা। এমনকি আপনার সুন্দরী স্ত্রীর সামনে আপনাকে ছোট করতেও দ্বিধা বোধ করবে না তারা।

নিরাপত্তাহীনতা
স্ত্রী/প্রেমিকা খুব সুন্দরী ও আকর্ষণীয় হলে স্বামী/প্রেমিকরা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই নিরাপত্তাহীনতায় ভোগে। তাদের মনে সবসময় প্রেমিকা/স্ত্রীকে হারানো ভয় কাজ করে। তাই সম্পর্ক নিয়ে সারাক্ষণ অনিরাপদ বোধ করে তারা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *