শিল্পা শেঠির খাবার, যা তাকে করেছে আকর্ষণীয় দেহের অধিকারী

লিউডের অভিনেত্রী শিল্পা শেঠিকে কে না চেনে। কিন্তু তার যে বিষয়গুলো সবচেয়ে আকর্ষণীয় তা হলো ফিগার। কিন্তু তার এ দারুণ ফিগারের রহস্য কী, তা অনেকেই জানতে চান। সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে এ রহস্যভেদ করেছে এনডিটিভি।

 

 

১. ভারতীয় খাবারঃ

শিল্পা জানান, ফিটনেস সব সময় সাধারণ ধ্যান-ধারণা অনুযায়ী চলে না। এক্ষেত্রে নিজের দেহকে জানা ও খাবারের ক্ষেত্রে নিজের শেঁকড়ে ফিরে যাওয়ার গুরুত্ব রয়েছে।

 

 

এ কারণে শিল্পা সব সময়েই তার নিজস্ব ধ্যান-ধারণা অনুযায়ী ডায়েটিংয়ে বিশ্বাসী। অন্যদের ধ্যান-ধারণা অনুযায়ী তিনি ডায়েটিং করেন না। তিনি বিশ্বাস করেন ডায়েটিংয়ে সব সময়েই নিজের দেহের ও মনের চাহিদা অনুযায়ী খাবার খেতে হবে।

 

 

 

২. মধ্যবিত্তের খাবারঃ

কোন ধরনের খাবার শিল্পার পছন্দ? এক্ষেত্রে শিল্পা জানান, ভারতীয় খাবারকেই সবচেয়ে গুরুত্ব দেন তিনি। তবে তার পছন্দের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে মধ্যবিত্ত ভারতীয়দের খাবার। ইন্ডিয়া টুডেতে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এ বিষয়টি জানান।

 

 

 

তার প্রিয় খাবারগুলোর মধ্যে রয়েছে সাধারণ ও প্রতিদিন খাওয়া হয় এমন খাবার। এক্ষেত্রে মটরশুটির তরকারি, ভাত। খাবারগুলো যখন তার মা রান্না করেন তখন তা বাড়তি প্রিয় হয়ে ওঠে। এছাড়া সুরভিত কারি, দোসা, ফুচকা ও মিষ্টি খাবারও তার প্রিয়।

 

 

 

৩. ভারসাম্য রক্ষাঃ

খাবার ও শারীরিক অনুশীলনের মাঝে ভারসাম্য রক্ষা করেন শিল্পা। তিনি মজাদার খাবার থেকে নিজেকে বিরত রাখেন না। আবার খাবারের পাশাপাশি ইয়োগা করতেও ভোলেন না। কিছুদিন আগে শিল্পা একটি জাতীয় দৈনিকের সঙ্গে অনানুষ্ঠানিক আলোচনা করেন। সেখানে তিনি জানান, তিনি পর্যাপ্ত ঘুমাতে ভোলেন না। এটি তার মানসিক চাপ কমাতে সহায়তা করে।

 

 

 

 

৪. স্থানীয় খাবারঃ

বাইরের জিনিসের তুলনায় তিনি স্থানীয়ভাবে পাওয়া খাবার ও মসলাই পছন্দ করেন। তিনি পরিশোধিত খাবারের বদলে ‘বাদামি’ খাবার খেতেই পছন্দ করেন বলেন জানান। দুধের ক্ষেত্রে তিনি মহিষের দুধই পছন্দ করেন। এর বাড়তি আয়রনের জন্যই এটি তার প্রিয়।

 

 

 

 

৫. সময় ধরে খাওয়াঃ

সকালে ঘুম থেকে উঠে হালকা গরম পানিতে লেবুর রস পান করতে ভোলেন না তিনি। এরপর দেরি না করে নাশতা সেরে নেন শিল্পা। আর দুপুর ১২টা থেকে একটার মধ্যেই দুপুরের খাবার খেয়ে নেন তিনি। এরপর যাই খান না কেন, রাত আটটার মধ্যে সব খাবার সেরে ফেলেন।

 

 

 

 

৬. জাংক ফুড নয়ঃ

অতিরিক্ত তেল ও চিনি-লবণ ব্যবহৃত হয় এমন জাংক ফুড তিনি এড়িয়ে চলেন। সুস্থ খাবার সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে যে, আপনার ডিনারে সুপজাতীয় কিছু রয়েছৈ। এছাড়া সন্ধ্যা ছয়টার পর কাঁচা কোনোকিছু খাবেন না। এমনকি কোনো ফলও নয়। আর রাত আটটার পর কোনো খাবারই খাওয়া যাবে না। এছাড়া বায়ুপূর্ণ পানীয় ও জাংক ফুড বাদ দিন।’

 

 

 

 

 

৭. খাবারের নিয়মঃ

খাবার ভালোভাবে চিবিয়ে খাওয়ারও গুরুত্ব রয়েছে বলে জানান শিল্পা। এটি হজমে সহায়তা করে। এছাড়া সকালের নাশতা বেশি পরিমাণে খাওয়ার বিষয়টিকে গুরুত্ব দেন তিনি। তার সকালের নাশতায় থাকে প্রচুর আঁশ ও ফলমূল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!